ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১
শিরোনাম

টানা তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মোদির শপথ আজ

  আরবান ডেস্ক

-

প্রকাশ :  ০৯ জুন ২০২৪, ০৪:১৪ সকাল

টানা তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি। রবিবার (৯ জুন) বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন তিনি। একইসঙ্গে প্রায় ৩০ জন মন্ত্রীরও শপথ নেয়ার কথা রয়েছে। শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান উপলক্ষ্যে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে দিল্লিতে।

ভারতে লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর সরকার গঠনের জন্য আনুষ্ঠানিক অনুমোদন নিতে শুক্রবার (৭ জুন) বিকেলে রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুর সঙ্গে দেখা করেন মোদি এবং সরকার গঠনের আবেদন জানান। বিজেপি সূত্রের খবর, রাষ্ট্রপতির কাছে এনডিএর মোট ২১ জন নেতার সমর্থনপত্র নিয়ে সরকার গড়ার দাবি জানান তিনি। রাষ্ট্রপতি তা অনুমোদন করেন।

শনিবার (৮ জুন) মন্ত্রিসভার পদ বণ্টনে এনডিএর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। জোটের শরিক হিসেবে নতুন সরকারের মন্ত্রিসভায় ৪টি মন্ত্রণালয় পাবে অন্ধ্র প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুর দল তেলেগু দেশম পার্টি (টিডিপি)। আর বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের জনতা দল ইউনাইটেড (জেডিইউ) ২টি মন্ত্রণালয় পাবে বলে বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে কে কোন মন্ত্রণালয় পাচ্ছেন তা এখনও স্পষ্ট নয়। দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদন মতে, গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়গুলো ঘিরে মানুষের কৌতূহল বাড়ছে; যার সবকটিই বিজেপি নিজের দখলে রাখবে বলে মনে করা হচ্ছে। যার মধ্যে রয়েছে স্বরাষ্ট্র, অর্থ, প্রতিরক্ষা, পররাষ্ট্র, সড়ক পরিবহন, রেলওয়ে, আইটি ও শিক্ষা।

এদিকে নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে দিল্লিতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। জি-২০ শীর্ষ সম্মেলনে যে ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল, মোদির শপথ অনুষ্ঠানকে ঘিরেও থাকছে একই রকম ব্যবস্থা।

মোদির শপথ উপলক্ষ্যে অনুষ্ঠানস্থল ও আশেপাশে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৫টি আধাসামরিক সংস্থা, এনএসজি কমান্ডো এবং ড্রোন মোতায়েন থাকবে। রাষ্ট্রপতি ভবনের কাছাকাছি বিশাল এলাকা 'নো ফ্লাই জোন'-এর আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। শুধু বিমান নয়, ফানুস বা ড্রোনও ওই এলাকায় ওড়ানো বা চালানো যাবে না।

এআই প্রযুক্তি এবং 'ফেসিয়াল রিকগনিশনের' মতো উন্নত প্রযুক্তির নিরাপত্তা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে শপথ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে। পাশাপাশি স্নাইপাররাও সতর্ক অবস্থায় থাকবেন পুরো অনুষ্ঠানজুড়ে।

অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট অতিথি হিসেবে ভারতের প্রতিবেশী ও ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলের সাত দেশগুলোর নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে নয়াদিল্লি। শপথ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ, মালদ্বীপ, শ্রীলঙ্কা, সেশেলস, মরিশাস, নেপাল, এবং ভুটানের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা উপস্থিত থাকবেন।

পাশাপাশি একই দিন সন্ধ্যায় আমন্ত্রিত নেতারা ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মূর্মু আয়োজিত নৈশভোজে যোগ দেবেন রাষ্ট্রপতি ভবনে। তাদের হোটেল থেকে অনুষ্ঠানস্থলে যাওয়া এবং ফিরে আসার জন্য নির্ধারিত রুট থাকবে। সেসব রুটে নেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত