মুন্সীগঞ্জের গবেষক মোঃ মুস্তাফা কামালের জীবন কাহিনী

0
129

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলাবাসী আসসালামু আলাইকুম, আমার নাম মোঃ মুস্তাফা কামাল। গ্রাম শিমুলিয়া, পোষ্ট: গুয়াগাছিয়া, থানা গজারিয়া, জেলা মুন্সীগঞ্জ, বাংলাদেশ। আমি জীবনে কোন দিন স্কুলে অথবা কারো কাছে লেখা পড়া শিখী নাই। আমার মধ্যে বিশেষ কোন প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষা নাই কিন্তু আমি বাংলা ইংলিশ সহজেই পড়তে লিখতে বলতে সক্ষম। আমি ১৯৮৮ সনে আমার জেঠাতো বোনের স্বামীর সাথে হেল্পার অথবা সহযোগী হিসাবে ৬ মাস কাজ করে থাকি পরে ডঃ রাসিদ খানের লেখা মডার্ন মেডিসিন প্রথম দ্বিতীয় তৃতীয় এই তিনটি বই সংগ্রহ করে পড়ে আমি নিজেই গ্রাম্য ডাক্তার প্রদান পেশা হিশেবে বেছে নেই। এই পেশায় প্রাথমিক চিকিৎসক হিসা‌বে আমি অনেক শুনাম অর্জন করে ১৯৯৬ সনে আমি প্রবাসে দক্ষিণ আফ্রিকাতে চলে আসি। দক্ষিন আফ্রিকাতে আসার ৫ বৎসর পরে ২০০২ সনে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ২ টি বড় দোকানের মালিক হতে সক্ষম হই এবং আমি ২টি বড় দোকানের সঞ্চয়ে আমি বিশেষ করে ভালো পয়সা আয় করিতে সক্ষম হই। আমি আমার জীবন কে কিন্তু এখানেই সীমা বধ্য রাখাতে চাইনা আরও অনেক দূরে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই। আমি ভবিষ্যতে আরও অনেক দূরে এগিয়ে যাবার আসা নিয়ে ২০০৬ সনে ভালো কিছু পাবার আসা নিয়ে গবেষণায় উপনীত হই। আমার গবেষণার মধ্যে আছে যাহা পৃথিবী ও পৃথিবীতে গাছ পালা বৃক্ষ তরু লতা পশু পাখী মানব পাহাড় পর্বত নদী-নালা সাগর মহাসাগর এবং মহাকাশে চন্দ্র সূর্য গ্রহ নক্ষত্র এই সকল কি ভাবে কীসের সাহায্যে কখন জন্ম হয়েছে এবং এই সকলের মধ্যে কোনটি আগে কোনটি পড়ে অথবা কোনটি ছোট কোনটি বড় এবং কোনটি কি ভাবে কীসের সাহায্যে জন্ম হয়েছে এই সকল কিছুই আমার গবেষণার মধ্যে আছে এবং আমি ২০০৬ সন হতে আজ পর্যন্ত গবেষণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আমার এই পর্যন্ত প্রায় ৮৫০ টির উপরে হবে এই পর্যন্ত গবেষণা করেছি আর তাহা সকল কিছু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সংগ্রহে রেখেছি। এই গবেষণায় আসার পর হতে আস্তে আস্তে আমার দোকান পাট সকল কিছুই হাত ছাড়া হয়ে যায়। তার কারনে মানুষের একটি মাথা একটি মগজে একাদিক কাজ করা সম্ভাব নয়।যার জন্য সর্বস্ব হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে গেছি। বর্তমানে এমন পর্যায় আছি পয়সার জন্য বিশেষ কোন কাজ কর্ম করিতে পারছি না। পৃথিবীতে প্রত্যেকটি দেশেই কিন্তু গবেষণাগার অথবা রিসার্চ ইন্সটিটিউট আছে এবং তেমনি ভাবেই ইন্টারনেট ঘাঁটলে দেখা যায় আমাদের বাংলাদেশেও গবেষণাগার অথবা রিসার্চ ইন্সটিটিউট আছে বাংলাদেশ সরকারের। আমাদের বাংলাদেশে গবেষক আছে কি না তাহা সন্দেহ আছে। যদি আমাদের দেশে গবেষক থাকতো তাহলে কিছু না কিছুর উপরে গবেষণা হতো আর তা পত্র পত্রিকাতে অথবা টেলিভিশনে আমরা দেখিতে পেতাম। তার কিছুই দেখতে পাইনা এবং যদি আসলেই সত্যি আমাদের দেশে বাংলাদেশ সরকারের গবেষণাগার অথবা রিসার্চ ইন্সটিটিউট থাকে তাহলে আমাদের দেশের গবেষণাগার অথবা রিসার্চ ইন্সটিটিউট যদি আমার দিকে দৃষ্টি রাখে তাহলে আমি ভবিষ্যতে আরও ভালো কিছু আরও নতুন কিছু গবেষণা করে দেখাতে সক্ষম হবো। আমি আমার গবেষণা হতে বাছাই করে প্রায় ৩৫০ টির মতো হইবে আমার ওয়েবসাইটে ফেছবুকে তুলে দরেছি এবং আমার এবং আমার ফেইজ বুক অথবা ওয়েবসাইট সব যায়গাতেই কেবল এক রকমের একটি পাসপোর্ট সাইজের ফটো ব্যাবহার করেছি এবং আমার দেশের সকলের প্রতি বিনীত অনুরোধ আমার গবেষণা গুলো পড়ার জন্য এবং আজকের মতো এখানেই বিদায় নিলাম সকলে ভালো থাকুন।

খোদা হাফেজ। মোঃ মুস্তাফা কামাল। facebook md mustafa kamal or gulam mustafa kamal or website reseaerchkamal.com email dmustafa41@yahoo.com

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here