পূর্বধলা সদরের বিভিন্ন রাস্তার বেহাল দশা, জনদুর্ভোগ চরমে

0
51

মোঃ জায়েজুল ইসলাম : রাস্তা আছে ড্রেন নাই, পানি যাওয়ার জায়গা নাই। সর্বত্র পানি-কাঁদার রাস্তায় সীমাহীন দুর্ভোগের কারনে নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলা সদরে বসবাসকারী মানুষের মুখে এখন এমন কথাই শোনা যাচ্ছে। রাস্তার দুই পাশে ড্রেন নেই, তাই একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তার উপর দিয়েই পানি গড়িয়ে যেতে দেখা যায়। এতে পুরো রাস্তা ভেঙ্গে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে ছোট বড় গর্তের। আর এসব গর্তে পানি কাঁদা জমে একাকার হয়ে থাকায় চলাচলে সৃষ্টি হচ্ছে দুর্ভোগের। প্রায়ই ঘটছে ছোট-খাট দুর্ঘটনা। এ দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। দীর্ঘদিন ধরে এমন বেহাল দশা বিরাজ করলেও তার কোন প্রতিকার নেওয়া হচ্ছে না। মানুষের দুর্ভোগের কথা তোলে ধরে বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় গণমাধ্যমে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশসহ স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করা হলেও নেওয়া হচ্ছে না বিশেষ কোন উদ্যোগ। এতে জনমনে সৃষ্টি হচ্ছে ক্ষোভ। পূর্বধলা সদরের চৌরাস্তা থেকে মধ্যবাজার হয়ে পূর্বধলা সরকারি কলেজ মোড় পর্যন্ত রাস্তাটি প্রায় ১ কিলোমিটার জুড়ে খানা-খন্দকে ভরে আছে। এই রাস্তার থানা কার্যালয় থেকে রেলক্রসিং পর্যন্ত এবং রেলক্রসিং থেকে মধ্যবাজার হয়ে কলেজ মোড় পর্যন্ত রাস্তার দুপাশে কোন ড্রেন না থাকায় বৃষ্টির পানি সরার কোন উপায় নেই। তাই সৃষ্ট জলাবন্ধতায় সৃষ্টি হয়েছে ছোট বড় গর্তের। পানি কাঁদা একাকার হয়ে থাকায় বাজারে আসা ক্রেতা-সাধারন ও পথচারীদের প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। পূর্বধলা বাজার থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও উপজেলা পরিষদ গেইট হয়ে স্টেশন রোড পর্যন্ত পুরো রাস্তার স্থানে স্থানে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে।

এই রাস্তার কাজী মার্কেটের সামনে, ব্র্যাক অফিসের সামনে এবং হাসপাতাল গেইট সংলগ্ন সারাক্ষন পানি জমে থাকে। দুই পাশে ড্রেন না থাকায় বাসাবাড়ীর দুর্ঘন্ধযুক্ত পানিতে একাকার হয়ে থাকে পুরু সড়ক। এই রাস্তার বাজার অংশে একটু ড্রেন থাকলেও তা অকেজো হয়ে পড়ে আছে অনেক আগে থেকেই। একই অবস্থা বিরাজ করছে রৌশনারা রোডে। এই রোডে ড্রেন না থাকায় বৃষ্টি ও বাসাবাড়ীর দুর্ঘন্ধযুক্ত পানি সারাক্ষন রাস্তার উপর দিয়ে প্রবাহিত হতে দেখা যায়। বালিকা বিদ্যালয় রোডে পানি সড়তে না পাড়ায় সারাক্ষন রাস্তায় পানি জমে আছে। ফলে এলাকায় বসবাসকারীসহ এই রাস্তায় তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এছাড়া মঙ্গবাড়ীয়া রোড, মেছুয়া বাজার রোড, পাটবাজার রোড কোন রাস্তার পাশেই সচল ড্রেনেজ ব্যবস্থা নেই। খাদ্য গোদাম রোডের এক পাশের ড্রেন থাকলেও তা ভরাট হয়ে যাওয়ায় সড়কের উপর দিয়ে পানি যেতে দেখা যায়। এসব কারনে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে জনসাধারনকে। পূর্বধলা বাজারের বাসিন্দা মো: শহিদুল ইসলাম, মো: জামাল উদ্দিন, মো: নাজমুল হক, স্বপন সরকার বলেন রাস্তা পাশে ড্রেন থাকায় পানি দ্রুত সরতে পারে না ফলে জমে থাকা পানিতে রাস্তায় বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হচ্ছে। এসব গর্তের কারনে রাস্তায় সারাক্ষন পানি-কাঁদা জমে থাকে। ফলে প্রতিনিয়ত চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তাছাড়া এসব গর্তে প্রায়ই ঘটে ছোটখাট দুর্ঘটনা। তাই উপজেলা বাসীর দুর্ভোগ লাগবে রাস্তার দুই পাশে ড্রেন নির্মান করে দ্রুত রাস্তা সংস্কারের দাবী জানান তারা। তারা অভিযোগ করে আর জানান, পূর্বধলা বাজারে প্রতি বছর মোটা অংকের ডাকে ইজারা দেওয়া হলেও দৃশ্যমান কোন সংস্কারের কাজ করা হয় না। তাছাড়া পৌরসভা না থাকায় পূর্বধলা বাসীকে এমন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে তারা জানান। উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী সাদিকুল জাহান রিদান জানান, পূর্বধলা উপজেলা সদরের এলজিইডির অন্তর্ভুক্ত ভাঙ্গা রাস্তাগুলি সংস্কারের জন্য প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। আর রাস্তার পাশে জায়গা না থাকলে স্থাপনা সড়িয়ে ড্রেন নির্মাণ করার এখতিয়ার আমাদের নেই। আর জরুরী ভিত্তিতে রাস্তার গর্ত ভরাটের বিষয়ে বলেন নতুন অর্থবছর ছাড়া এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না। পৌরসভা থাকলে পৌরকর্তৃপক্ষ স্থাপনা সরানো বা রাস্তার পাশে ড্রেন নির্মানের ব্যবস্থা নিতে পারতেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ জাহিদ হাসান প্রিন্স জানান, রাস্তার গর্তগুলি ভরাটের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর যে সকল রাস্তার পাশে ড্রেন আছে সেগুলি পরিস্কার করে সচল করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here