পূর্বধলা উপজেলা চেয়ারম্যানের অনন্য উদ্যোগ, শ্রমিক সংকটে প্রতিরাতে ধান কেটে দিচ্ছেন কৃষকের

0
229

মো: জায়েজুল ইসলাম: নেত্রকোনার পূর্বধলায় পুরোদমে চলছে বোরো ধান কাটা। ফলন বাম্পার হওয়ায় কৃষকের মুখেও ফুটছে হাসির ঝিলিক। তবে সেই হাসি কিছুটা ম্লান করে দিচ্ছে প্রবল শ্রমিক সংকট। শ্রমিক সংকটের কারণে অনেক কৃষক ধান কাটতে পারছেন না। তাই পাকা ধান মাঠে রেখে অনেকেই দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন। এ অবস্থায় কৃষকের পাশে দাঁড়িয়েছেন পূর্বধলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সুজন। তিনি প্রতি রাতেই তার দলীয় নেতাকর্মী সমর্থকদের নিয়ে পালাকরে সমস্যাগ্রস্ত কৃষকদের ধান কেটে বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন। তার এ অনন্য উদ্যোগে খুশি উপজলার উপকারভোগী কৃষক।

ঘাগড়া ইউনিয়নের প্রান্তিক চাষী মো: আব্দুল আজিজ এ বছর ১২কাঠা (৯৬ শতক) জমিতে বোরো আবাদ করেছিলেন। বর্তমানে ধান পেকে যাওয়ার কিছু অংশ নিজে কাটতে পারলেও বাকী ধান শ্রমিক সংকটের কারনে কাটতে পারছিলেন না। এমন খবরে উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন গত বৃহস্পতিবার রাতে তার দলীয় প্রায় ৪০জন নেতা কর্মীদের নিয়ে টর্চলাইট ও মোবাইলের আলোতে ধান কেটে বাড়ীতে পৌঁছে দেন। এতে খুশি কৃষক আব্দুল আজিজ। এভাবে প্রতি রাতে সমস্যাগ্রস্ত কৃষকের ধান কেটে দিতে সহযোগিতা করছেন উপজেলা চেয়ারম্যান।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে ২১ হাজার ৭৭০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। এর মধ্যে ১৮ হাজার ৪০০ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল (উফশী), ৩ হাজার ৩৭০ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড জাতের বোরো ধান চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। এর মধ্যে ১৫ হাজার ৭৩০ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল (উফশী) ও ৬ হাজার ১০০ হেক্টর জমিতে হাইব্রিড জাতের ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। সে হিসেবে ৭০ হেক্টর জমিতে লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত ধান আবাদ হয়েছে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, উপজেলায় এ বছর পর্যাপ্ত সার সরবরাহ ও কৃষকরা ন্যায্যমূল্যে সার ক্রয় করতে পেরেছে। অনুকূল আবহাওয়া, সেচ সুবিধা ও পর্যাপ্ত উপকরণ সরবরাহ থাকায় বাম্পার ফলন হয়েছে।
পূর্বধলা উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, বর্তমান বোরোধান কাটার মওসুমে শ্রমিক সংকট ও শ্রমিকের মুল্য বেশি থাকার কারণে পাকা ধান কাটতে অসুবিধায় পড়ছেন উপজেলার অনেক কৃষক। এমন খবরে ব্যক্তিগত দায়বোধ থেকে ধান কাটায় সহযোগিতা করছি। দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে পালা করে চেষ্টা করছি কৃষকের পাশে থাকার। মওসুম শেষ না হওয়া পর্যন্ত তার এ কার্যক্রম অব্যহত থাকবে বলে তিনি জানান।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here