পূর্বধলায় আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করে জেলা প্রশাসনের সন্তোষ প্রকাশ

0
281

মো: জায়েজুল ইসলাম : নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলায় গৃহহীনদের জন্য নির্মিত আশ্রয়ণ প্রকল্প পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। কাজের মান দেখে তারা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে
উপজেলায় ৬৫ ভূমি ও গৃহহীন পরিবার নতুন ঘর পেয়েছে। দুর্যোগ সহনীয় পাকা ঘর পেয়ে খুশি ভূমি ও গৃহহীন পরিবারগুলো।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ে উপজেলার বিশকাকুনী ইউনিয়নের ধলা গ্রামে ১২টি, জারিয়া ইউনিয়নের নাটেরকোণা গ্রামে ৯টি, খলিশাউড় ইউনিয়নের ইচুলিয়া গ্রামে ৭টি, ধলামূলগাঁও ইউনিয়নের ঘাগড়াপাড়া গ্রামে ৭টি, সদর ইউনিয়নের ছোছাউড়া গ্রামে ১৭টি, নারান্দিয়া ইউনিয়নের খসখসিয়া গ্রামে ১টি, ও দ্বিতীয় পর্যায়ে সদর ইউনিয়নের নারায়ণডহর গ্রামে ১২টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ের প্রতিটি ঘরের নির্মাণ ব্যয় ছিল ১লক্ষ ৭১ হাজার টাকা ও দ্বিতীয় পর্যায়ে ১লক্ষ ৯০ হাজার টাকা। ।
এছাড়া দ্বিতীয় পর্যায়ে সদর ইউনিয়ন নারায়ণডহর গ্রামে ১ টি, ছোছাউরা গ্রামে ২ টি ও ঘাগড়া ইউনিয়নে ০৫ টি ঘরের নির্মাণ কাজ চলছে।

বরাদ্ধ পাওয়া ভূমি ও গৃহহীনদের কাছে ইতিমধ্যে ঘর ও জমির দলিল হস্থান্তর করা হয়েছে।
কয়েকটি আশ্রয়ণ প্রকল্প ঘুরে দেখা গেছে, বরাদ্ধ পাওয়া এসব ঘরে বসবাস শুরু করেছেন কিছুদিন আগেও আশ্রয়ণহীন ছিলেন এমন পরিবারগুলো।
নারায়ণডহর আশ্রয়ণে ঘর পাওয়া নার্গিস খাতুন, হালেমা খাতুন, জরিনা খাতুন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের এসব ঘর পেয়ে তারা খুব খুশি। এক সময় তাদের মাথা গুজার ঠাঁই-ই ছিল না। অন্যের বাড়িতে থাকতেন। আর এখন তারা পাকা ঘরের মালিক। বাকি জীবনটা এখানেই কাটাতে চান।
নারায়ণডহর আশ্রয়ণে শ্বশানের জায়গায় ঘর নির্মাণ ও নিম্নমানের কাজ হয়েছে এমন অভিযোগে প্রেক্ষিতে আজ রোববার প্রকল্প পরিদর্শনে আসেন নেত্রকোনা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক জিয়া আহমেদ সুমন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মনির হোসেন জীবন ও পূর্বধলা উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন। এসময় তারা জনপ্রতিনিধি, আশ্রয়ণের বাসিন্দা ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে অভিযোগের কোনো সত্যতা পাননি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উম্মে কুলসুম বলেন, নির্ধারিত বরাদ্ধ দিয়ে যথাযথ মান বজায় রেখেই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আমরা সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখছি। আশ্রয়ণের বাসিন্দাদের যেকোনো সংকটে আমরা তাদের সহযোগিতায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
নেত্রকোনা স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক জিয়া আহমেদ সুমন বলেন, প্রত্যেকটি আশ্রয়ণ প্রকল্পই সরকারি খাস জমিতে নির্মাণ করা হয়েছে। তাছাড়া কাজের মানও সন্তোষজনক।
পূর্বধলা উপজেলা চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম সুজন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নন্দিত উদ্যোগকে বাধাগ্রস্থ করতেই একটি কুচক্রি মহল পায়তারা করছে। আশ্রয়ণের বাসিন্দাদের জীবনমান উন্নয়নেও উদ্যোগ নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here