জন্মদিনে সকলের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা শাহিন সরকার

0
224

মোস্তাক আহমেদ খান, (সহ-বার্তা সম্পাদক, আজকের আরবান ) : ৩৯ তম জন্মদিনে ফেসবুক বন্ধু ও শুভাকাঙ্খীদের শুভেচ্ছায় সিক্ত হলেন বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য মোঃ শাহিন সরকার। তাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ফেসবুকের বিভিন্ন বন্ধু, স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধু, অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষী, ছোট-বড় ভাই-বোন, শিক্ষক, সাংবাদিক, লেখক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, দেশি- বিদেশী বন্ধু, জানা–অজানা মুসলিম ও অমুসলিম বন্ধুরা। তার ব্যক্তিগত ফোনে, ফেসবুকের টাইমলাইন ও মেসেঞ্জারে অসংখ্য জন্মদিনের শুভেচ্ছায় সিক্ত করায় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছেন তিনি। মোঃ শাহিন সরকার ১৩ ই মে, ১৯৮৩ সালে নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার হোগলা ইউনিয়নের সেহলা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতা আব্দুর রশিদ সরকার, তার আপন চাচা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, হোগলা ইউনিয়ন পরিষদের তিনবারের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান, বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারী, উপজেলা আওয়ামীলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ ইসলাম উদ্দিন সরকার। তার মায়ের নাম হালিমা খাতুন।
শিক্ষা জীবন শুরু পূর্বধলা উপজেলার হোগলা ইউনিয়নের পূর্ব পাটরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক সাধুপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়, এইচএসসি পূর্বধলা সরকারি কলেজ ও অনার্স মাষ্টার্স আনন্দ মোহন সরকারী কলেজ এবং এল এল বি মোমেন শাহী-ল-কলেজ। ভাই বোনের মাঝে ২য় সন্তান। রাজনৈতিক জীবনের সূচনা স্কুল ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, হোগলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি, ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক, ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ও আওয়ামী আইন ছাত্র পরিষদ ময়মনসিংহ জেলা শাখা’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের জাতীয় পরিষদের সম্মানিত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনীতির হাতেখড়ি পরিবার সুত্রেই। অত্যধিক মাতৃভক্ত এই মানুষটি দুই সন্তানের জনক। এক ছেলে ও এক মেয়ের পিতা। স্ত্রী অর্থনীতি বিভাগে কলেজের প্রভাষক।
তিনি বর্তমানে রাজনীতির পাশাপাশি ব্যবসায়ের সাথে সম্পৃক্ত রয়েছেন। সত্বাধীকারি: এভার গ্রীন এক্সরসোরিস কোম্পানী, চেয়ারম্যান: রুপালী ইন্সট্রাকশন এন্ড সাপ্লাই।
করোনা কালীন সময়ে জীবন বাজি রেখে মানুষের সেবায় গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখেন। এছাড়া তিনি ২০০১ সালের পহেলা অক্টোবর বিএনপি-জামায়াত ত্রাসের রাজত্ব কায়েম, সংখ্যালঘুদের ঘরবাড়ি জ্বালানো, হত্যা, লুণ্ঠন, ধর্ষণের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর, বিএনপি জামায়াতের জালাও পোড়াও আন্দোলন এবং ১১ জানুয়ারি ২০০৭ সালের ওয়ান ইলেভেন বা এক এগারো, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের একতরফা সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উদ্ভূত রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে জরুরি অবস্থার সময় ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে শুরু করে অদ্যবধি পর্যন্ত অত্যন্ত সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে সকল আন্দোলন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন। সর্বশেষ গত ২০২০ সালের ১৯ অক্টোবর স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ পরিষদের সদস্য পদ লাভ করে কুড়িয়েছেন প্রসংশা। হয়েছেন সম্মানিত। পেয়েছেন অসংখ্য মানুষের প্রানভরা দোয়া ও ভালোবাসা। রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনে যেখানেই দায়িত্ব পালন করেছেন সেখানেই মানুষকে করেছেন আপন। হয়েছেন মানুষের সুখ-দুঃখের সারথী। অসাধারন ব্যক্তিত্বের অধিকারী এই মানুষটি রাজনৈতিক ও সামাজিক জীবনে দারুন সফল এবং অনুকরনীয়। তিনি একজন সৎ ও সাহসী রাজনীতিবিদ। তাকে নিয়ে পূর্বধলা বাসি সত্যিই গর্বিত। অবসর নেই বললেই চলে তবুও যতটুকু সময় পান ততটুকুই কাটাতে ভালবাসেন এলাকার মানুষকে নিয়ে এবং নিজের মা-বাবা, স্ত্রী আর সন্তানদের সাথে। জন্মদিনে তিনি সকলের নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে দোয়া কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here